ইস্ট ওয়েস্ট ইউনি, মহাখালি ক্যাম্পাস। একমাত্র রিসার্চ বিল্ডিং বাদে আর বাকি ৪ টা বিল্ডিং এর ৯ টা লিফট কোন দিন অচল ছিলো , তা কেউ মনেও করতে পারবেনা । প্রায় প্রতিটা বিল্ডিং এ সেমিনার / রিডিং রুমের ফ্যাসিলিটি ছিলো । ভাড়া ক্যাম্পাস হলেও আমাদের ছিলো এডমিন বিল্ডিং ১০ তলার অডিটোরিয়াম এর অবাধ ব্যবহার । আর এসি ? কোন দিন ও এসি ছাড়া ক্লাস করেছি বলে মনে পড়েনা । ছিলো না শুধু কি ? … নিজেদের ক্যাম্পাস … চললো দীর্ঘদিনের প্রতিক্ষা … কবে আসবে নিজেদের সেই আরাধ্য ক্যাম্পাস ।

অবশেষে বহু কাউন্টডাউন এর পর এলো সেই মাহেন্দ্রক্ষন …

তাই কি ? নাকি নতুন স্বপ্ন ভঙ্গের বেদনা … আসুন খুজে ফিরি সে কারন …

নতুন ক্যাম্পাসের শুরু হলো ভয়াবহ অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে … বেশিরভাগ ফ্যাসিলীটি চালু ছাড়াই শুরু হলো ক্যাম্পাস , কোন রকম উৎসব মুখর শুরু ছাড়াই !!! লিফট , লাইব্রেরী , স্টাডি রুম , ল্যাব, প্রিন্টার, ক্যাফেটেরিয়া , ইনডোর গেমস, অডিটোরিয়াম , সেমিনার … কিচ্ছু নাই ! ক্লাস রুমে কম্পিউটার , এসি … নাই !! হিসাব করতাম আচ্ছা , নিজের ক্যাম্পাস ই তো !! হাজার হলেও এই হাজার শিক্ষার্থীর পিতা-মাতার শ্রমের একটা ফসল ই তো এই ক্যাম্পাস ! কিছুদিন মানিয়ে নেই !!

East West Campus

শুরু হলো মানিয়ে নেয়া … সামারে শুরু হলো ক্লাস , গরমে অসহ্য হয়েও সয়ে যেতাম – আমরা আমরা ই তো !! প্রথম বছর ২০১২ কাটলো এই করেই ! ১৩ সালের সামারে এক বছর কেটে যাবার আবার হিসাব করলাম , সেমিস্টার ফী বাড়লো নতুন দের জন্য … ফ্যাসিলিটি কি বাড়লো !! লাইব্রেরী বাধ্যতামূলক চালু করতে হয়েছে , তখনো ল্যাব চালু হয়নি ! আর বাকি গুলোর কোন খবর ই নাই !! বছর পার হবার পর যখন বাতাসের অভাবে শিক্ষার্থীরা অচেতন হওয়া শুরু করলো , তখন এডমিনের কাছে আবেদন করা হলো – ব্যবস্থা নেয়ার জন্য … ( আবেদন করা লাগবে কিজন্য ? কোন মনিটরিং সিস্টেম নাই , কিছু নাই , আবেদন করে ফ্যাসিলিটি নেয়া লাগবে !! সেমিস্টার ফি দিতে তো কোন আবেদন করা লাগেনা , তার বিনিময়ে প্রাপ্য ফ্যাসিলিটির জন্য আবেদন করা লাগে? )

আচ্ছা যাক , আবেদন এর ফল কি ? শূন্য !! কোন ফল না দেখে আবারো সাইনিং এর মাধ্যমে আবেদন করা হলো … ফলাফল একই । কখনো কখনো বলা হয়েছে , তৃতীয় পক্ষের দূর্নীতির কথা … ধৈর্য ধরে সহ্য করতে বলা হয়েছে ! কিন্তু সেমিস্টারের টাকা নেবার বেলায় এডমিনের ধৈর্য ধরার ইচ্ছা একদম ই নাই !! এই সকল আচরনের অর্থ ই হচ্ছে , জোর করে আন্দোলন করানো … ইয়েস ! , আমাদের বাধ্য করা হয়েছে গ্রাউন্ডে নামাতে ! গ্রাউন্ডে আন্দোলনে নামলো শিক্ষার্থীরা … এই আন্দোলনের দাবির সাথে একাত্ম হয়ে নিরুপায় ভিসি স্যার তক্ষনি ফ্যান কিনলেন প্রচুর … যার ফলে পরবর্তীতে তাকে এডমিনের চক্ষুশূল হতে হয়েছে !! এমন কি ততকালীন প্রক্টর স্যার ও আমাদের সাথে দাবীর সাথে একাত্ম হলেন … ভার্সিটি ১০ দিনের ছুটি দিলেন ভিসি স্যার … পরিস্থতি থিতু হয়ে গেলো …

পরে ছুটির পর ভার্সিটি শুরু হলো … ফ্যান এর শব্দে কান ঝালাপালা- লেকচার কিছুই কানে আসেনা … কিচ্ছু করার নাই !! সহ্য করতে হবে … সিএসই’র জন্য ল্যাব চালু হলেও বাকি সব এখনো সুদূর পরাহত … হেল্লো নামের নিম্নমানের কোম্পানি কে একচ্ছত্র ব্যবসার সুবিধা দেয়ায় তাঁরা নিম্নমানের খাবার কিন্তু উচ্চহারে দাম বসিয়ে ছাত্র নির্যাতন শুরু করলো … খাবারে তেলাপোকা পাওয়া যায় , সেটাও নাকি খেয়ে ফেলতে হবে – ধৈর্য ধরা লাগবে !! এতদিনে আমরা শিখে গেছি আবেদন করতে আমরা খুব ই পারদর্শী হয়ে উঠেছি ! … চলছে আবেদন — ফলাফল কিন্তু সেই একই !! জড়ো হলো শিক্ষার্থীরা , বন্ধ হলো হেল্লো – নামক অত্যাচার … শিক্ষার্থিদের বাধ্য করলো কারা তাহলে আন্দোলনে নামতে ?? যথাযথ মনিটরিং সিস্টেম না থাকাই কি এর কারন নয় ?

১৪ সাল এলো , বিশ্ববিদ্যালয় ২ বছর পেরিয়ে তৃতীয় বছরে পা দিলো … এসি , লিফট নষ্ট!! অডিটরিয়াম , স্টাডি রুম , সেমিনার – এখনো নাই !! আমাদের স্কুলে ও যে অডিটরিয়াম , স্টাডি রুম ছিলো – ইস্ট ওয়েস্ট এ তা বসানোর ও জায়গা নাই , তা ও নাহয় মানলাম , কিন্তু তার অস্তিত্ত্বই বা কই !!! আবেদনের পর আবেদন চলছে – ছাত্র অসুস্থ হয়ে পড়েছে – ক্লাস বিকল হচ্ছে , এডমিনের কোন পদক্ষেপ নাই ! এই পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীরা যে আন্দোলনে নামবে সেটা এডমিন জানতো ই !! কিন্তু কোন পদক্ষেপ নাই কেনো !! উত্তর নাই ! গ্রাউন্ডে আবারো নামলো শিক্ষার্থীরা ।

এবার তাঁরা অসহ্য । প্রত্যেক বছর বছর এই আন্দোলন করে অধিকার আদায় তাদের পক্ষে সম্ভবপর নয় … তাদের কেনো সাধারন শিক্ষার্থী হয়ে পড়াশোনা ছেড়ে আন্দোলন করে স্টাডি রুম আদায় করতে হবে !!! এসি লিফট এর দাবীর সাথে যুক্ত হলো – আরেকটি ন্যায্য দাবী – ছাত্র প্রতিনিধি ঠিক করে দিতে হবে যারা প্রতি বছর এই সব সমস্যা গুলো যথাযথ ভাবে চিহ্নিত করে এডমিন কে জানাবে । কোন নির্বাচন করে এই ছাত্র প্রতিনিধির দরকার নাই ! এডমিন নির্বাচন করে দিলেই চলবে … ভিসি স্যার রাজী হলেন – যার প্রমান লিঙ্কে দেয়া আছে – শর্ত দিলেন সিজিপিএ সহ আরো কিছুর… উনার এই শর্ত প্রদান প্রমান করে আমাদের আন্দোলনের যথার্থতা , প্রমান করে যে সত্যি ই এই খানে যথাযথ মনিটরিং নাই , প্রমান করে ক্লাব কমিটি মেমবার দের পঙ্গুত্ব , যারা ছাত্রদের দাবী নিয়ে কথা বলতে কখনো ই এগোয়না !! এডমিন নিজেও বলতে পারবেন না কোন দিন যে , কোন ক্লাব প্রেসিডেন্ট এসে ভার্সিটির অবকাঠামোগত সমস্যা তুলে ধরে তার সমাধানের আবেদন জানিয়েছে – যেরকম টা হতো মহাখালি ক্যাম্পাসে নুসরাত স্যার দের সময় …

যাহোক , এবার ও শিক্ষার্থীরা এই অসহ্য গরমে অসহায় হয়ে ক্লাস বয়কটের সিদ্ধান্ত নেয় … খেয়াল করুন , ক্যাম্পাস চালুর আড়াই বছরের মাথায় এসে ক্লাস বয়কট … এমন লক্ষি শিক্ষার্থী সারা বাংলাদেশ ঘুরেও কোন ভিসি মহোদয় খুজে পাবেন না … যাহোক – ক্লাস বয়কট শুরু হলো , সকাল ৮ টা থেকে শিক্ষার্থীরা গেইটের সামনে দাবী কাগজে লিখে নিয়ে জড়ো হলো … নেমে এলেন এডমিন … হুমকির মুখে সাধারন শিক্ষার্থীরা ক্লাসে প্রবেশ করে … যেটার সাক্ষী হাজারো শিক্ষার্থী …

এবার আসি মূল প্রসঙ্গে , এই বিশ্ববিদ্যালয়ে রাজনীতি নিষিদ্ধ ? নাকি শুধু ছাত্র রাজনীতি ?? কারন এখানে এডমিন দের মাঝে রাজনীতি দেখা যায় , শিক্ষকদের মাঝেও রাজনীতি দেখা যায়, দলাদলি – মিটিং সব ই দেখা যায় , ছাত্র দের নিয়ে সব মহলেই চলে রাজনীতির খেলা … সব হালাল, শুধু মাত্র হালাল নয় ছাত্রদের দাবী আদায়ের মুখ … মুখ খুলতে গেলেই চিৎকার করে জানিয়ে দেয়া হয় – এইটা হারাম – কারন ইহার নাম ‘ছাত্র রাজনীতি ‘ !!!
সত্যি সেলুকাস !!

ক্লাস বয়কটের পর শুরু হলো আসল কুটনীতি, শুরুতে জানানো হলো – তেমন কিছুনা , শুধু ওয়ার্নিং দিয়ে ছেড়ে দেয়া হবে মূল দাবী তোলা কঠস্বর গুলোকে – যদিও তাঁরা কোন অপরাধ করেনি ! পাশাপাশি সাধারন শিক্ষার্থীদের ঠান্ডা করা হলো – এবার সত্যি প্রায় ঠিক করা হলো এসি – লিফট ! শুরু হলো ছয়জন ‘দাগী আসামীর’ বিচার । তিন জন শিক্ষার্থীকে জিজ্ঞাসাবাদ করে ছেড়ে বাকি তিন জন কে বলির পাঠা বানানোর সিদ্ধান্ত হলো – এরা নাকি প্রায় ই ‘ডিস্টার্ব ‘ করে !! একেকজনের বিরুদ্ধে একেক চার্জ মন মত সাজিয়ে কোন সাক্ষী প্রমান ছাড়াই ডিসিপ্লিনারি মিটিং এ এক কথায় এদের বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত আনা হলো – নাম মাত্র হিয়ারিং এ ‘শোনা’ হলো না কিছুই , চরম রাজনীতির বলি হলো – একেবারে সাধারন তিন শিক্ষার্থী ।

ফেসবুকে এর বিরুদ্ধে কথা বলায় ইস্ট ওয়েস্টের ভেরিফাইড পেইজ স্বীকৃতি প্রাপ্ত পেইজের সাইন তুলে দেয়া হলো এডমিন থেকে ফেসবুকে অথরাইজেশন দেখিয়ে রিপোর্ট করে … !! আর কখনো ইস্ট ওয়েস্ট এই স্বীকৃতি নাও পেতে পারে !

এবার আপনি বিচার করুন – আসলে রাজনীতি করলো কারা, আসলে রাজনীতি চেয়েছিলো কি সাধারন শিক্ষার্থী রা ? কেনো তাদের কপালে একদম সাধারন অবকাঠামোগত সুবিধা জোটেনা ? ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীদের কথা বলতে গিয়ে ‘রাজনীতি করার ট্যাগ লাগিয়ে এডমিন নামের রাজনীতি বিদ রা কুটিনীতির চাল চেলে নিজ স্বার্থ হাসিলের খেলা খেলে যাচ্ছেন , আর এর সমর্থনে কিছু নগন্য শিক্ষক যোগ দিয়ে শিক্ষার্থীদের বিভ্রান্ত করে চলেছেন …
নিজের বিবেক কে জিজ্ঞেস করে দেখুন , ‘হেইট পলিটিক্স’ আদর্শের সাধারন শিক্ষার্থীরা যখন দাবী আদায়ে আন্দোলনে নামতে বাধ্য হয় , তখন আসলে রাজনীতি কারা করতে চায় ?

আমরা ক্যাম্পাসে রাজনীতি চাই না ,

চাই শুধু নিজেদের পাওনা অধিকার টুকু …

আমাদের অধিকার নিশ্চিত করুন …

শুধু এতটুকু চাওয়াতে ই তিন শিক্ষার্থীর অন্যায় বহিষ্কারাদেশ !

অবিলম্বে প্রত্যাহার করুন …

Original link is here